পরকীয়ায়’ বাধা দেওয়ায় প্রেমিককে নিয়ে স্ত্রী খুন করে রবিন’কে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 25 October 2022, 130 বার পড়া হয়েছে,

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা গ্রামের মো. আজিজুল হক রবিন (২২) নামে যুবক নিখোঁজ হননি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। নরসিংদীর জেলার রায়পুর উপজেলায় পানির নিচে খুঁটিতে বাধা অবস্থায় যে লাশটি পাওয়া যায় সেটিই রবিনের।

রবিনের স্ত্রী সুইটি আক্তার এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে নিজেই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। গত শনিবার (২২ অক্টোবর) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আফরিন আহমেদ হ্যাপির কাছে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে নিজের স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনার কথা জানান সুইটি।

এর মধ্য দিয়ে প্রায় পাঁচ মাস পর রবিন ‘নিখোঁজ’ রহস্যের উন্মোচন হলো। স্ত্রী সুইটির রহস্যজনক আচরণে সন্দেহ হলে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর তিনি ঘটনা খুলে বলেন। এরপর তিনি আদালতে স্বীকারোক্তি দিতে রাজি হন।

আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, দিদার নামে এক স্বজনের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক স্বামী সহ্য করতে না পারার কারণে সুইটি এ হত্যাকান্ড ঘটান। হত্যাকান্ডের সময় দিদারসহ বাদল নামে এক ভাড়াটে খুনি উপস্থিত ছিলেন। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ি এ হত্যাকান্ড ঘটানো হয়। এরপর লাশ গুম করার জন্য শরীরে ইট বেঁধে নদীর মাঝখানের একটি খুঁটি পুতে বেধে দেওয়া হয়।

আশুগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) ও ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, স্বজন দিদারের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক ছিলো রবিনের স্ত্রী সুইটির। এ নিয়ে রবিন ও সুইটির মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। রবিনকে এড়িয়ে চলতে থাকেন সুইটিকে। এতে ক্ষুব্ধ সুইটি তার স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।
তিনি জানান, পরিকল্পনা অনুুযায়ী গত ২২ মে সুইটি তার স্বামী রবিনকে নবীনগরের বাবার বাড়িতে নিয়ে যান। পরের দিন মাজার জিয়ারত ও সুইটি খালার বাড়িতে যাওয়ার জন্য আশুগঞ্জের লালপুর বাজার নৌঘাটে আসেন। সেখানে পূর্ব পরিচিত দিদার ও ভাড়া করা খুনি বাদল একটি নৌকা নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন। তাদের সাথে ছিলো ঘুমের ওষুধ মিশানো মিষ্টি। পথিমধ্যে রবিনকে মিষ্টি খাওয়ার প্রস্তাব দেয় দিদার। কিন্তু রবিন এতে রাজি হননি। কিছুক্ষণ পর মাঝি নৌকার ইঞ্জিন বন্ধ করে দেন। তখন ভাড়াটে খুনি বাদল তার কাছে নৌকার ইঞ্জিন স্টার্ট দেওয়ার একটি যন্ত্র দিয়ে রবিনের মাথায় বাড়ি দিলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। পরে নৌকায় থাকা সকলে মিলে রবিনের লাশ গুম করার জন্য তার শরীরে একটি ভারি ইট বেঁধে নদীর মাঝখানে একটি খুটি পুঁতে বেধে দেয়। পরে সেখান থেকে ফিরে সুইটি তার স্বামীকে পাচ্ছেন না বলে খবর ছড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় রবিনের বাবা আলমগীর হোসেন তার ছেলেকে পাচ্ছেন না বলে থানায় সাধারন ডায়রি করেন।

পুলিশ কর্মকর্তা আনোয়ার আরো বলেন, সুইটি বিভিন্ন আচরণ আমাদের সন্দেহ হতে থাকে। তার স্বামী রবিন বিদেশ ভালোভাবে পৌঁছে গেছে বলেও ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন। অন্যদিকে রবিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি আশুগঞ্জ এলাকাতেই ব্যবহার হচ্ছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়। আরো কিছু সন্দেহ থেকে রবিনের স্ত্রী সুইটিকে দু’দিন আগে গ্রেপ্তার করা হলে হত্যাকান্ডের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। লাশ ফেলে রাখার স্থানও দেখায় সুইটি। পরে জানা যায়, নরসিংদীর রায়পুরা এলাকার ওই স্থান থেকে খুঁটিতে বাধা লাশ উদ্ধার করে মাঝেরচর নৌ পুলিশ। লাশের পরনে থাকা কাপড় চোপড়ের মাধ্যমে রবিনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়। এ ঘটনায় রবিনের বাবা বাদী হয়ে আশুগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
রবিনের বাবা মো. আলমগীর খান সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘আমার ছেলের লাশটাও দেখতে পারিনি। এমন নিষ্ঠুর হত্যাকান্ডের সঙ্গে যারা যারা জড়িত তাদের সবাইকে গ্রেপ্তার করে দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানাচ্ছি। -(সরোদ)