হয়রত মোহাম্মদ (সাঃ)কে কটুক্তির প্রতিবাদে ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 12 June 2022, 136 বার পড়া হয়েছে,

মহানবী হজরত মোহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে কটুক্তির অপরাধে নুপুর শর্মা ও নবীন কুমার জিন্দানকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার দুপুর ১২টার দিকে জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া প্রাঙ্গণে জেলার উলামা মাশায়েখদের উদ্যোগ এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

জামিয়ার প্রিন্সিপাল মুফতী মুবারকুল্লাহ’র সভাপতিত্বে ও মুফতী নোমান হাবিবীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জামিয়ার শায়খুল হাদীস ও আল হাইয়াতুল উলয়ালিল জামিয়াতিল কওমিয়ার কো-চেয়ারম্যান শায়খ সাজিদুর রহমান।

বক্তব্য রাখেন শিক্ষা সচিব মুফতী শামসুল হক সরাইলী, হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ ইদ্রিস, মুফতী বোরহান উদ্দিন কাশেমী, মাওলানা জহিরুল ইসলাম, মুফতী কামাল উদ্দিন কাশেমী, মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান প্রমুখ।

বিক্ষোভ সমাবেশে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির মুখপাত্র নুপুরশর্মা কর্তৃক বিশ্বনবী মোহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে কটুক্তি মূলক বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তারা বলেন, মোহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে নুপুরশর্মার অবমাননাকর বক্তব্য বিশ্বের মুসলমানদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। মহানবী হজরত মোহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে করুচিপূর্ণ মন্তব্য কোনো সভ্য সমাজ মেনে নিতে পারে না। মুসলমানদের প্রাণের স্পন্দন মোহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে কটুক্তি কোনো মুসলমান বরদাশত করতে পারে না।শীর্ষ উলামায়ে কেরামগণ বলেন, নুপুরশর্মার এই জঘন্যতম অপরাধের কারণে ভারতকে মুসলিম বিশ্বের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে, এবং অবিলম্বে নুপুরশর্মাকে গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।ভারত যদি তাদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হয় তাহলে বিশ্ব মুসলিম ভারতের সকল পণ্য বয়কট করতে বাধ্য হবে।

বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ সরকারকে ও ভারতের নুপুরশর্মার এই জঘন্যতম বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানানোর আহবান জানানো হয়। এবং চলমান জাতীয় সংসদ অধিবেশনে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করার দাবি জানানো হয়।
সমাবেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া উলামা মাশায়েখগণ ৫ দফা দাবি জানান, ১) ভারত সরকারকে অবশ্যই অবশ্যই কটুক্তি দুই বিজেপি নেতাকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে, ২) বিশ্ব মুসলমানদের কাছে ভারতকে ক্ষমা চাইতে হবে, ৩) অন্যথায় সারা বিশ্বের মুসলমানগন ভারতীয় পন্য বয়কট করবে, ৪) মুসলমানদের বিশ্বাস ও ধর্মের প্রতি সম্মান জানিয়ে বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাতে হবে, ৫) কারাগারে আটক আলেম-উলামা ও তৌহিদী জনতাকে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।