বিএনপি জানে বাংলাদেশের জনগণ কোনোদিন তাদের ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনবেননা: আখাউড়ায় আইনমন্ত্রী

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 12 March 2022, 205 বার পড়া হয়েছে,
জুয়েল মিয়া,ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ ‘আপনারা জননেত্রী শেখ হাসিনার উপর বিশ্বাস রাখেন। বাংলাদেশ ইনশাল্লাহ ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হিসেবে সারা বিশ্বে পরিচিত হবে।২০২১ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছিল বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হবে। তিনি তার আগেই বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ করে দিয়েছেন।’
শনিবার (১২ মার্চ) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এসব কথা বলেন।
বক্তব্যের শুরুতে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৪৯ সালে বঙ্গবন্ধু তার রাজনৈতিক গুরু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও মওলানা ভাসানীকে নিয়ে এই আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেন। এর আগে তিনি ১৯৪৮ সালে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন।
তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামীলীগ ও আওয়ামীলীগের নেত্রী অন্যায় করেনা।জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে ভালবাসে এবং তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে সারা বিশ্বে উন্নয়নের রুল মডেল হিসেবে পরিচিত করেছে৷ আজকে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে অন্যরকম মর্যাদা পায়। আজকে আমাদের কেউ আর মিসকিন বলেনা৷ আমাদেরকে এখন আর কেউ বলেনা যে আমরা ভিক্ষার থলি নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় থাকি। বাংলাদেশ এখন অনেক অনেক এগিয়ে গেছে, পাকিস্তান অনেক অনেক পিছিয়ে গেছে।
মন্ত্রী বলেন,‘যারা বিএনপি করে তাদের জিজ্ঞেস করেন,এমন স্বপ্ন আপনারা কোনদিন কি জনগণকে দেখাতে পেরেছেন যে বঙ্গবন্ধু কন্যা দুই হাজার একশত সালের পরিকল্পনাও দিয়ে গেছে। এরকম কোনো পরিকল্পনা কোনোদিন তারা চিন্তাও করতে পারছে কিনা, কল্পনা করতে পারছে কিনা একবার জিজ্ঞাসা কইরেন।বিএনপি আইন মানে না, সংসদ মানে না। তারা ক্ষমতায় গেলে দেশ বিরাণভূমি হয়ে যাবে। তাদের কোনো কথায় আপনারা কান দেবেন না।
তারা কিন্তু জানে তাদেরকে আপনারা বাংলাদেশের জনগণ কোনোদিন ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনবেন না।সেইজন্য তারা ক্ষমতায় আসার জন্য ষড়যন্ত্র করতেছে।
তাদের সেক্রেটারি জেনারেল দেশে বিদেশে চিঠি লিখে তাদের মুরব্বিদের কাছে বলেন,এই সরকার আপনাদের মানে তাদের মুরব্বিদের স্বার্থ রক্ষা করবে না। তারা একবারও বলেনা এই সরকার জনবিচ্ছিন্ন, এই সরকার বাংলাদেশের জনগণের উপকার করেনা।তার মানে জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উপকার করেছে, বাংলাদেশের মানুষের ভবিষ্যৎ বদলে দিয়েছে।
বিএনপি জামাত গোষ্ঠীকে উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন,এই পরাজিত শক্তি চেয়েছিল বাংলাদেশকে একটি বিক্ষুক রাষ্ট্রে পরিণত করতে।বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত করতে।১৯৯৬ ও ২০০৯ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের হাল ধরার পর বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রুল মডেল হয়ে গেছে। এই উন্নয়ন ও জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি জনগণের ভালবাসা দেখে তারা ঈর্ষান্বিত। তারা বাংলাদেশের উন্নয়ন চায় না৷ বিএনপি দুইদিন পর পর জনগণকে আন্দোলনের কথা বলে। মানুষ কেন আন্দোলনে যাবে,আন্দোলনের কি প্রয়োজন আছে।
বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে হত্যা করলেই তারা মনে করেছিল বাংলাদেশকে হত্যা করা হবে। সেই ষড়যন্ত্র আপনারা নস্যাৎ করে দিয়েছেন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।
বঙ্গবন্ধু যেদিন থেকে বুঝতে পেরেছিল সেদিন থেকে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে নেমে তাদের অধিকার আদায় সম্বন্ধে বুঝিয়েছেন এবং শিখিয়েছেন।
বঙ্গবন্ধু জনগণকে বলেছিল তোমরা একা নও, আমিও আছি তোমাদের সাথে। আমি তোমাদের নেতৃত্ব দিয়ে অধিকার আদায় করে দেব।এই দায়িত্ব খুব কম মানুষ নেয়। তিনি দায়িত্ব নিয়ে তা পালন করেছেন।
তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন,বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছেন। তারপর বাংলাদেশকে একটা শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সকল প্রকার আইন এবং অবকাঠামো তৈরি করে দিয়েছেন। এই বাংলাদেশেই কিছু বিপদগামী ইতর-বেইমানের হাতে তাকে তার প্রাণ দিতে হয়।
আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মো. জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে উপজেলা পরিষদ মাঠে সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান বক্তা ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার।