নবীনগরে জরুরি কথা আছে বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করল পাতানো মামা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 17 July 2022, 135 বার পড়া হয়েছে,

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ করা হয়েছে পাতানো মামার বিরুদ্ধে। ধর্ষিতা শ্যামগ্রাম মোহিনী কিশোর স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির ছাত্রী।

ধর্ষক উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের কুড়িনাল গ্রামের শিশু মিয়ার ছেলে মো. শামিম মিয়া। এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে নবীনগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করছেন।

রোববার (১৭ জুলাই) ধর্ষিতার মা সাংবাদিকদের কাছে ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরে ধর্ষককে দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ধর্ষক শামিম শ্যামগ্রাম বাজারে একজন সবজি ব্যবসায়ী। ওই কিশোরীর মা তার কাছ থেকে প্রায়ই সবজি ক্রয় করতেন। সেই সুবাদে সু-সর্ম্পক গড়ে উঠে এবং ধর্মীয় ভাই-বোন হিসেবে বাড়িতে যাতায়াত করত। সেই সূত্রে ওই ছাত্রীকে ভাগনি হিসেবে সম্বোধন করত। গত ৭ জুলাই ভোরে প্রাইভেট পড়ার যাওয়ার সময় জরুরি কথা আছে বলে ভাগনিকে ডেকে শ্যামগ্রাম বাজারের হৃদয় মিষ্টান্ন ভাণ্ডার নামে একটি মিষ্টির দোকানের ফাঁকা স্টোর রুমে নিয়ে যায় এবং জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে।

ধর্ষণ শেষে এ ঘটনা কাউকে জানালে তার বড় ধরনের ক্ষতি হবে হুমকি দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। লোকলজ্জা ও ক্ষতির ভয়ে ধর্ষিতা ওই ছাত্রী কাউকে কিছু জানায়নি। নারীলোভী ওই পাতানো মামা তাকে আবারো শারীরিক সর্ম্পক করতে চাপ দিলে তার মাকে বিষয়টি খুলে বলে।

ধর্ষিতার মা বলেন, গত শনিবার (১৬ জুলাই) মেয়ে আমাকে বিষয়টি অবগত করে। গ্রামের সাহেব সর্দারদের জানিয়ে রাতেই থানায় অভিযোগ করি। আমার মেয়ের প্রতি অন্যায়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এ ব্যাপারে নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমিনুর রশিদ অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ধর্ষককে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।