যখন কিছু লিখতে বসি -আল আমীন শাহীন

সাহিত্য, 21 December 2021, 396 বার পড়া হয়েছে,

যখন কিছু লিখতে বসি
লেখা হয় এলোমেলো কিছু
যা প্রত্যাশায় ছিল না
লেখাটা কি এমনই কিছু ?
যখন কিছু লিখতে বসি
মনের ভেতর ভেসে উঠে
ফেলে আসা দিনের নানা কিছু
আমি ছুটে চলি মোহনার বাঁকে
যেখানে না বলা কথা লুকিয়ে থাকে।
কাগজ আর কলম যখন সংগোপনে
নিঃসৃত কালি নিবিঢ় আলিঙ্গনে
এক নারীর অনুভব হয় তখন..
দাঁড়িয়ে যেন আমারই সামনে
স্পষ্ট দেখি তার সেই চোখ
চোখের মনি,চোখের দ্যুতি
একসময়ে তার লাজুক চোখের পাতা
কাগজ ভিজে যায় অশ্রুর ফোটায়
কলমের গতি হঠাৎ থমকে দাঁড়ায়।
আজো সময় বয়ে যায়
সেই চোখের মিলন প্রত্যাশায়।
কিছু যখন লিখতে বসি
ভাবনায় মুছে ফেলি আমার দুঃখ আমার যাতনা
আমার ব্যস্ততা আমার বাস্তবতা
আমি ছুটে চলি মোহনার বাঁকে…
কলম নিঃসৃত কালি নিবিড় আলিঙ্গনে
কাগজে তখন নানা পক্তির আল্পনা আঁকে।
অশরীরী সেই দু চোখ আমার পাশেই থাকে।
যখন কিছু লিখতে বসি
ক্যানভাসে আঁকি সদ্যস্নাত সেই তুমি নদীর তীরে
নবীন মাঝি আমি ভাটিয়ালী গলায়
তিতাসের বুকে ভাসমান নৌকায়
রাঙ্গা রাখাল বাঁশরী হাতে
পুরনো সাক্ষী দুজনে সেই অশ্বুথতলায়।
হারিয়ে যাই তখন সেই দু চোখে
তারই হৃদয়ে , তার স্বপ্নিল পরশ
আমাকে পাগল করে
মিশে থাকি যেন অপ্রত্যাশিত তার
নিবিঢ় আলিঙ্গনে।
কিছু যখন লিখতে বসি
হোক সেটা শশ্মান গোরস্থান
আমি বেঁচে থাকার সাহস পাই
পকেটে রাখা ডেঞ্জার প্রেসক্রিপশন
শহরের বড় ডাক্তারের চিরকুট
আমাকে মৃত্যুর তারিখ জানতে পারে না।
কিছু যখন লিখতে বসি
হোক সেটা মাজার মন্দির মসজিদ কিংবা গীর্জা
আমার কিছু যায় আসেনা
আবর্জনার স্ত‘পের পাশে
নদীর ধারে সমুদ্র সৈকত হোক
হোক নিষিদ্ধ গলি, অথবা বেশ্যালয়
শহর ছাড়িয়ে হারিয়ে লোকালয়
খেলার মাঠ, ধানের মাঠ
পাহাড় কিংবা পর্বত নির্ভত্যে কোথাও
হাজতের প্রকোষ্টে জেলে অথবা সেলে
তাতেও আমার কিছু যায় আসেনা
যখন কিছু লিখতে বসি
সেই স্থান আমার বাসর হয়।
স্বর্ণালী স্মৃতিতে আমি হারাই
মনে কল্পনা কাগজে আল্পনা
হারিয়ে,যেন তাকে বারবারই খুজে পাই।
সকলের অদৃশ্যে দুজনে থাকি কাছাকাছি
নিভৃত্যে সংগোপনে
অমর আলিঙ্গনে।

যখন কিছু লিখতে বসি – আল আমীন শাহীন
মৌলভীপাড়া. ২৭-০৭-২০১৩