বর্ণাঢ্য আয়োজনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তী উদযাপিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 30 May 2022, 143 বার পড়া হয়েছে,

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তী উদযাপিত হয়েছে। জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের উদ্যোগে শনিবার (২৮ মে) সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের সহসভাপতি, সাংবাদিক পীযূষ কান্তি আচার্যের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর বিভূতিভূষণ দেবনাথ ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. রুহুল আমীন। অনুষ্ঠানের শুরুতেই মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন করেন অতিথিবৃন্দরা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহসভাপতি ডা. অরুণাভ পোদ্দার।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি তার বক্তব্যে বলেন, রাজনীতির সঙ্গে সংস্কৃতির যোগসূত্র অনেক গভীর। কারণ সংস্কৃতি ছাড়া রাজনীতি হয় না। আর রাজনীতি ছাড়া সংস্কৃতি হয়না। তাই সংস্কৃতি কর্মকাÐকে সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে হবে। এজন্য প্রগতিশীল সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, গত বছরের ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে সংস্কৃতির রাজধানী খ্যাত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যে তান্ডব চালানো হয়েছিল, সেটি খুবই জঘন্য ও নিন্দনীয়। প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংস্কৃতির চর্চা রুদ্ধ করতেই সেই হামলা চালিয়েছিল। কিন্তু আগুনের পরশমনির ছোঁয়ায় উজ্জীবিত হচ্ছে সংস্কৃতি। সংস্কৃতি চর্চার ওপর মৌলবাদী শক্তির সকল রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রগতিশীল শক্তির এই জাগরণ মনকে আশান্বিত করে।

পরে আলোচনা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন, ছায়ানটের প্রশিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান তূর্য, সম্মিলন পরিষদের ঢাকা মহানগরীর মাঈনুর রহমান খান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী পীযূষ কান্তি আচার্য, তনুজা দেবনাথ, অবনী সরকার, চন্দনা মজুমদার, সোমা পাল ও প্রিয়ম আচার্য প্রমুখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে সম্মেলক গান পরিবেশন করেন পরিষদের স্থানীয় শিল্পীবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশনা করেন বিশিষ্ট আবৃত্তিকার মনির হোসেন, শিবলী চৌধুরী, হাবিবুর রহমান পারভেজ, ডা. অরুণাভ পোদ্দার। তালযন্ত্রে ছিলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত অনীক নন্দী, বাবুল মালাকার। মন্দিরায় অপু, কি-বোর্ডে দেবাশীষ দেবু, গীটারে অভিজিত সাহা ও অবনী সরকার।

উপস্থাপনায় ছিলেন শারমিন সুলতানা। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে অতিথিদের কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহণ করেন বিজয়ী প্রতিযোগীরা। দেশব্যাপী রবীন্দ্রসঙ্গীতের প্রসারে আয়োজিত প্রতিযোগিতায় সাধারণ ও কিশোর বিভাগে প্রথম মান অর্জন করেন তনুজা দেবনাথ, প্রীতম আচার্য এবং কিশোর বিভাগে প্রথম মান অর্জন করেন প্রিয়ম আচার্য ও প্রান্তিকা সাহা প্রমা।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় তিতাস আবৃত্তি সংগঠন, উদীচী, মহিলা পরিষদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট এবং নদী নিরাপত্তা বিষয়ক সংগঠন নোঙর এর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।