কসবায় নকল বালাই নাশক ও নিষিদ্ধ বাসুডিন বিক্রির দায়ে ডিলারের জরিমানা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 7 March 2022, 165 বার পড়া হয়েছে,

শেখ মো. কামাল উদ্দিন, কসবা, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া : সিনজেন্টা কোম্পানীর নাম ব্যবহার করে নকল বালাই নাশক ওষুধ ও নিষিদ্ধ বাসুডিন বিক্রির দায়ে ইকবাল হোসেন নামক এক সার ডিলারকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানাসহ ওষুধ জব্দ করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।
রোববার বিকেলে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সনজীব সরকার। এ সময় ওই গোদাম থেকে ১৪ কার্টুন নকল ওষুধ ও ৪ কার্টুন বাসুডিন জব্দ করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত ও কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, কসবা উপজেলার মুলগ্রাম ইউনিয়নের রাইতলা বাজারে সরকার অনুমোদিত সার ডিলার এম.আর ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মো. ইকবাল হোসেন ভূইয়া দীর্ঘদিন ধরে সিনজেন্টা কোম্পানীর নাম ব্যবহার করে নকল বালাই নাশক ওষুধ বিক্রি করে আসছেন। সিনজেন্টা কোম্পানীর পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা কৃষি অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।

রোববার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সনজীব সরকার ও কসবা উপজেলা কৃষি অফিসার হাজেরা বেগম এম.আর ট্রেডাসর্েৃর স্বত্বাধিকারী মো. ইকবাল হোসেন ভূইয়ার সারের গোদামে অভিযান চালায়। এ সময় ওই গোদামে সিনজেন্টা কোম্পানীর নাম ব্যবহার করা ১৪ কার্টুন বালাই নাশক ওষুধ পাওয়া গেছে। এগুলি লেদার লাইজার দিয়ে পরীক্ষা করে নকল সনাক্ত করেন। এ সময় কৃষি কাজে ব্যবহৃত নিষিদ্ধ চার কার্টুন বাসুডিন ওই গোদামে পাওয়া যায়।
ভ্রাম্যমান আদালতের কাছে ইকবাল হোসেন অপরাধের স্বীকারোক্তি দেয়ায় তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও ধরনের অপরাধে জড়িত না হওয়ার মুচলেকা গ্রহণ করেন।

কসবা উপজেলা কৃষি অফিসার হাজেরা বেগম বলেন, সিনজেন্টা কোম্পানীর নাম ব্যবহার করে বালাই নাশক নকল ওষুধ ও নিষিদ্ধ বায়োডিন বিক্রি করে কৃষকদের প্রতারিত করে আসছেন ইকবাল হোসেন ভূইয়া। তার কাছ থেকে ১৪ কার্টুন নকল ওষুধ এবং চার কার্টুন নিষিদ্ধ বাসুডিন পাওয়া গেছে। তিনি অবৈধ ভাবে বালাই নাশক ওষুধ ও নিষিদ্ধ বাসুডিন বিক্রি করায় তার লাইসেন্স বাতিল করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সহকারী কমিশার (ভূমি) সনজীব সরকার বলেন, এম.আর ট্রেডার্সে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা ও সিনজেন্টা কোম্পানীর নাম ব্যবহার করা ১৪ কার্টুন বালাই নাশক ওষুধ লেদার লাইজারের মাধ্যমে পরীক্ষা করে সবগুলিই নকল সনাক্ত হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ উল আলম বলেন, সিনজেন্টা কোম্পানীর ওষুধ নকল করে বিক্রির একটি লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করতে গিয়ে তা হাতে নাতে ধরা পড়ে।