পরকীয়া সন্দেহে স্ত্রীকে পাঁচ টুকরো

অপরাধ, 17 November 2021, 535 বার পড়া হয়েছে,

পাবনা প্রতিনিধি : পরকীয়া সন্দেহে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে স্বামী তেজেম মোল্লাকে (৪২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বুধবার ভোরে সিআইডির একটি টিম নাটোর জেলা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে। তেজেম মোল্লা পাবনা সদর উপজেলার ফলিয়া গ্রামের মৃত বাজের উদ্দিন মোল্লার ছেলে।

গতকাল মঙ্গলবার ভোররাতে সদর উপজেলার মালিগাছা ইউনিয়নের ফলিয়া গ্রামে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পর দেহ থেকে হাত-পা বিচ্ছন্ন করে ফেলেন স্বামী তেজেম মোল্লা।

সিআইডি পাবনার সহকারী পুলিশ সুপার তোফাজ্জ্বল হোসেন বুধবার বিকেলে জানান, স্ত্রীকে হত্যার পর তেজেম বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। ঘটনার পরপরই সিআইডি কাজ শুরু করে। তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তারা তেজেম মোল্লাকে নাটোরের বড়াইগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে।

তিনি আরও জানান, তেজেমের দেয়া তথ্যমতে তার বাড়ির পেছনে একটি ডোবা থকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি গরু জবাই করার ছুরি উদ্ধার করা হয়। ছুরিটি নতুন এবং লম্বায় ৩২ ইঞ্চি।

সহকারী পুলিশ সুপার তোফাজ্জ্বল হোসেন গ্রেপ্তার তেজেমের বরাত দিয়ে জানান, ফুফাতো ভাইয়ের সাথে স্ত্রী হামিদা খাতুনের (৩৮) গত ৫ মাস ধরে পরকীয়া চলছিল। ৫ মাস আগে স্ত্রীর এক ফুফাতো ভাই ময়মনসিংহ থেকে তাদের বাড়ি বেড়াতে আসেন। তিনি এসে দেড় মাস ধরে অবস্থান করেছিলেন। এ সময় তাদের মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর মোবাইলে তাদের সম্পর্ক চলতে থাকে। এতে ক্ষুদ্ধ হন তেজেম।

পরে তিনি স্ত্রীকে খুনের পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী মঙ্গলবার ভোররাতে স্ত্রীকে ঘুমন্ত অবস্থায় গরু জবাই করার ছুরি দিয়ে ৫ টুকরা করে হত্যা করেন তেজেম মোল্লা। তিনি পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এ স্বীকারোক্তি দিয়েছেন।

সহকারী পুলিশ সুপার তোফাজ্জ্বল হোসেন বুধবার বিকেলে জানান, আসামি তেজেমকে আদালতে নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। তাকে আদালতের মাধ্যমে পাবনা জেল হাজতে নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, তেজেম মোল্লা ও তার স্ত্রী আপন চাচাতো ভাই-বোন ছিলেন। তেজেমকে তার শ্বশুর বাড়ির পাশে বাড়ি করে দিয়েছিলেন। তেজেম- হামিদা দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।