নারী সংগঠক কোহিনূর আক্তার প্রিয়া’র শুভ জন্মদিন পালিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 1 July 2022, 193 বার পড়া হয়েছে,

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশিষ্ট নারী সংগঠক ও মানবতার ফেরিওয়ালা কোহিনূর আক্তার প্রিয়া’র শুভ জন্মদিন পালিত হয়েছে।

শুক্রবার (১ জুলাই) সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার টেংকের পাড়স্থ পৌর কমিটি সেন্টারের ২য় তলায় ‘জনতার খবর’র কার্যালয়ে কেক কাটার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ জন্মদিন পালন করা হয়। এছাড়াও গতরাত ১২ টার পর থেকে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ফেইসবুকের পাতায় ও জন্মদিনের কেককাটা সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

নান্দনিক উপস্থাপক, আব্দুল মতিন শিপনের উপস্থাপনায় এতে উপস্থিত ছিলেন, শরীফ আহমেদ খাঁন, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক পিসভিশন বাংলাদেশ। সাবেক পৌর কাউন্সিলর মোস্তাক আহমেদ খোকন। কবি আজিজা সোপান। কবি ও ছড়াকার, মনিরুল ইসলাম শ্রাবণ, সভাপতি কবির কলম। আদিত্ব্য কামাল, বার্তা সম্পাদক জনতার খবর। তিতাস হুমায়ূন, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক কবির কলম। আব্দুল্লাহ আল নাঈম, প্রতিষ্ঠাতা ও প্রকাশক ডিজিটাল ব্রাহ্মণবাড়িয়া ডটকম। মোহাম্মদ জুয়েল মিয়া, সভাপতি আখাউড়া উপজেলা প্রেসক্লাব ও জেলা প্রতিনিধি দৈনিক চিত্র। মো. আল-আমিন রশীদ, পরিচালক সানল্যাব ডায়াগনস্টিক সেন্টার। মো. মনিরুজ্জামান মনির, শক্তি ফাউন্ডেশন। মুক্তধারা সাহিত্য অঙ্গনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী প্রমূখ।

‘কোহিনূর আক্তার প্রিয়া’ সুবিধা বঞ্চিত মানুষের কল্যাণে দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি সাহিত্য চর্চা, লিখালিখিতে নিজেকে ব্যস্ত রাখেন ও সমাজের অসংগতিতে দীপ্ত প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর বটে। তিনি সামাজিক ও মানবিক সংগঠন প্রাউড অব ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র সভাপতি। মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, জেলা নাগরিক ফোরাম। সাংগঠনিক সম্পাদক, নারী মুক্তি সংসদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া। প্রকৃতি বিষয়ক সংগঠন গ্রীন ব্রাহ্মণবাড়িয়া, স্বপ্নের ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের পথতারার স্কুল, তিতাস নদীর মাঝি, মজিদ মাস্টার ফাউন্ডেশন সহ আরও অনেক গুলো সংগঠনের প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে নিরবে নিভৃতে কাজ করে যাচ্ছেন। রক্তদান, রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন, ঈদ উপহার বিতরন, দুর্যোগ কবলিতদের সহায়তা, ত্রান বিতরন, ইফতার বিতরন, বৃক্ষরোপন কর্মসূচি, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বিনামূল্যে শিক্ষা সাম্রগী বিতরন ও পাঠদান, বাল্যবিবাহ রোধ, করোনা কালিন সময়েও তাঁর মানবিক কাজগুলো ছিলো চোখে পড়ার মত।

ব্যক্তিজীবনে তিনি পেয়েছেন অনেক পুরস্কার ও সম্মাননা। উনার মানবিক কর্মের মধ্যেই তিনি বেঁচে থাকবেন আজীবন ও তাঁর আলোয় আলোকিত হবে পুরো তিতাস জনপদ।