আখাউড়ায় ইজিবাইকচালক হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন, গ্রেফতার-২

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, 6 March 2022, 168 বার পড়া হয়েছে,

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌর শহরের বাইপাস সড়কে ইজিবাইকচালক নাজিরুল ইসলাম খুন হওয়ার এক সপ্তাহের ব্যবধানে হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ।

ভিকটিমের লুন্ঠিত মোবাইল ফোনের সূত্র ধরেই এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করে আখাউড়া থানা পুলিশ। এ ঘটনায় দুই ঘাতককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন আখাউড়া থানার ওসি মিজানুর রহমান। নাজির হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে আদালতে ঘাতক হানিফ ও শাহিন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলেও জানান তিনি।

জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামি জুলহাস ওরফে শাহীন (৩৮) হবিগঞ্জ জেলা সদরের আনোয়ারপুর মৃত আব্দুল বারীর ছেলে। সে আখাউড়া পৌরশহরের রাধানগর লাল বাজার এলাকার (ভাসমান) বাসিন্দা। অপর ঘাতক হানিফ (৫৫)। সে আখাউড়া পৌরশহরের দেবগ্রামের মৃত মালু মিয়ার ছেলে।

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে আসামিরা জানায়, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টার দিকে তারা আখাউড়া পৌর শহরের সড়কবাজার থেকে ইজিবাইকচালক নাজিরুল ইসলামকে খড়মপুর কেল্লা বাবার মাজারে যাওয়ার উদ্দেশে তিনশত টাকায় ভাড়া করে। আখাউড়া বাইপাস সড়কের পল্লীবিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকার এক নির্জন স্থানে পৌঁছালে যাত্রীবেশী ঘাতকরা ইজিবাইকে থাকা টুলবক্স থেকে টাকাসহ চালকের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়। পরে ইজিবাইক চালকের দেহ তল্লাশি করতে গেলে ইজিবাইকচালক ভিকটিম নাজিরুল ইসলাম তাদের বাধা দেয়। এ সময় তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হলে একপর্যায়ে ভিকটিমকে ছুরি দিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করে সড়কে ফেলে রেখে ঘাতকরা পালিয়ে যায়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঘটনাস্থলেই ভিকটিম ইজিবাইকচালক জহিরুলের মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাকিবুল হাসান রকিকে (আমলি আদালত-৩) উক্ত আসামিরা নিজের দোষ স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়।

আখাউড়া থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, ইজিবাইক চালক ভিকটিম জহিরুল ইসলামের ব্যবহৃত ছিনতাইকৃত মোবাইল ফোনসহ ঘাতক হানিফকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  পৌর শহরের দেবগ্রাম এলাকা থেকে আখাউড়া থানা পুলিশ গ্রেফতার করে। হানিফের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার সহযোগী জুলহাস ওরফে শাহীনকে আখাউড়া লাল বাজার ভূমি অফিসের সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এ হত্যাকাণ্ডের অপর এক পলাতক আসামিকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। থানার রেকর্ড পর্যালোচনা করে আসামি হানিফের বিরুদ্ধে একটি অপহরণ মামলা ও তিনটি মাদক মামলা পাওয়া গেছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

প্রসঙ্গত, বুধবার গভীর রাতে আখাউড়া পৌর শহরের বাইপাস সড়কের পল্লী বিদ্যুৎকেন্দ্র এলাকা থেকে আখাউড়া থানার টহল পুলিশ তার রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে।

নাজিরুল ইসলাম পৌরশরের দুর্গাপুর এলাকার ভাড়াটিয়া বাসিন্দা। সে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সেন্দা শিলাউর গ্রামের মৃত আবু ছালেক মিয়ার ছেলে।